মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৬ মে ২০১৯

“সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় অপ্রতিরোধ্য বাংলাদেশ-আমার গ্রাম-আমার শহর বিনির্মাণে আরডিএ কর্তৃক প্রণীত গবেষণা প্রতিবেদন যাচাইকরণ” কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান


প্রকাশন তারিখ : 2019-05-14

    

  

 

“সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় অপ্রতিরোধ্য বাংলাদেশ”-আমার গ্রাম-আমার শহর বিনির্মাণে আরডিএ কর্তৃক প্রণীত গবেষণা প্রতিবেদন যাচাইকরণ” কর্মশালা পল্লী উন্নয়ন একাডেমী (আরডিএ), বগুড়ায় আইটি সেন্টারে ১৫-১৬ মে, ২০১৯ মেয়াদে অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

কর্মশালার উদ্বোধন করেন জনাব মোঃ আমিনুল ইসলাম, মহাপরিচালক, আরডিএ, বগুড়া ও অতিরিক্ত সচিব, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। এ সময় তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রতিটি গ্রামে আধুনিক নগর সুবিধা সম্প্রসারণের লক্ষ্যে বর্তমমান সরকার আমার গ্রাম আমার শহর-এর যে স্বপ্ন দেখছেন সেই স্বপ্নের গ্রাম বিনির্মানে এবং সরকারের ২০২১ ও ২০৪১ এর রূপকল্পে বাংলাদেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশে রূপান্তর করার যে প্রয়াস ব্যক্ত করেছেন সেখানে গ্রামগুলোতে নগর সুবিধার প্রসার বাড়ানো সম্ভব হলে বদলে যেতে পারে গ্রামীণ জনগণের জীবনচিত্র, দূর হতে পারে দারিদ্র, জীবনমান উন্নয়নের মাধ্যমে টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের মাধ্যমে বাংলাদেশ পৌঁছে যেতে পারে কাংখিত মধ্যম আয়ের দেশে। কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, বগুড়া জেলার জেলা প্রশাসক জনাব ফয়েজ আহাম্মদ।
কর্মশালাটির মূল প্রবন্ধ আমার গ্রাম-আমার শহর যৌথভাবে উপস্থাপন করেন মোঃ আমিনুল ইসলাম, মহাপরিচালক, আরডিএ, বগুড়া ও ড. একেএম জাকারিয়া, পরিচালক (অবঃ) আরডিএ, বগুড়া। কর্মশালাটিতে কনভেনর এর দায়িত্ব পালন করেন ড. মোঃ আব্দুর রশিদ, পরিচালক, আরডিএ, বগুড়া।
দুই দিন ব্যাপী কর্মশালাটির ১ম দিনে গ্রামীন যোগাযোগ ব্যবস্থা, গ্রামীন নিরাপদ পানি ব্যবস্থা, গ্রামীন জ্বালানি ও বিদ্যুৎ ব্যবস্থা, গ্রামীন তথ্য ও যোগাযোগ ব্যবস্থা, গ্রামীন বাসস্থান, সেনিটেশন ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, গ্রামীন শিক্ষা ব্যবস্থা, : গ্রামীন স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও পরিবার পরিকল্পনা, গ্রামীন জনগোষ্ঠির আর্থিক সেবা খাতে অর্ন্তভ‚ক্তি এবং ২য় দিনে গ্রামীন সামাজিক প্রতিষ্ঠান ও নাগরিক পরিষেবা, গ্রামীন উদ্যোক্তা উন্নয়ন ও কর্মসংস্থান, গ্রামীন বাজার ব্যবস্থা, গ্রামীন নিরাপত্তা ও বিচার ব্যবস্থা, গ্রামীন সামাজিক নিরাপত্তা, গ্রামীন দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলা, গ্রামীন শিশু ও নারী উন্নয়ন, গ্রামীন মানব সম্পদ উন্নয়ন, গ্রামীন যুব ও ক্রীড়া উন্নয়ন বিষয়ে পর্যালোচনা প্রতিবেদন ও উন্মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। গবেষণাটি গুণবাচক পদ্ধতিতে পরিচালনা করা হয়েছে। এ গবেষণায় তথ্য সংগ্রহের জন্য বিশ্ব উন্নয়ন সূচক অনুসারে বাংলাদেশের গ্রামীণ সমাজকে বিশ্লেষণ করার জন্য উপরিউক্ত ১৭টি সেক্টরে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। গবেষণা এলাকা হিসেবে বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলার চকপাথালিয়া গ্রাম থেকে বিস্তারিত তথ্য উপাত্ত সংগ্রহের উদ্দেশ্যে এফজিডি, পিআরএ, নিবিড় সাক্ষাৎকার গ্রহণ করা হয়। মাঠ পর্যায়ের সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানসমূহের কর্মরত কর্মকর্তা ও আরডিএ’র অনুষদ সদস্যবৃন্দের অংশগ্রহণে কর্মশালাটি অনুষ্ঠিত হয়।



Share with :

Facebook Facebook